রহস্য ঘেরা দ্বীপ “বাল্ট্রা”!

রহস্য ঘেরা দ্বীপ "বাল্ট্রা”!

বাল্ট্রা মূলত মানববসতিশূন্য একটি দ্বীপ।দক্ষিন আমেরিকার ইকুয়েডরের নিকটবর্তী ১৩ টি দ্বীপ নিয়ে গঠিত গ্যালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জ । আর এই ১৩ টি দ্বীপের একটিই হচ্ছে বাল্ট্রা। কিন্তু এখানকার অন্য ১২ টিদ্বীপ থেকে বাল্ট্রা একেবারেই আলাদা,অদ্ভূত এবং রহস্যময়।

রহস্য ঘেরা দ্বীপ

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কৌশলগত কারণে এই দ্বীপপুঞ্জের কয়েকটি দ্বীপে এয়ারবেস স্থাপন করে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। তখনকার এয়ারবেসের একজন অফিসার ফ্রান্সিস ওয়ানগার – এর মাধ্যমেই বিশ্ববাসী প্রথম জানতে পারে বাল্ট্রা দ্বীপের অদ্ভূত চরিত্রের কথা। এটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় দ্বীপপুঞ্জ হওয়ায় এখানে প্রচুর বৃষ্টি হয়। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো বৃষ্টির এক ফোঁটাও পড়ে না বাল্ট্রাতে।

কী এক রহস্যজনক কারণে বাল্ট্রার অনেক উপর দিয়ে উড়ে গিয়ে অন্য পাশে পড়ে বৃষ্টি। বাল্ট্রা অর্ধেক পার হওয়ার পর অদ্ভূতভাবে আর এক ইঞ্চিও এগোয় না বৃষ্টির ফোটা। বৃষ্টি যত প্রবলই হোক না কেন, এ যেন সেখানকার এক অমোঘ নিয়ম।

রহস্য ঘেরা দ্বীপ

 

Baltra island- Photo Credit-Groupo San Vicente

অদ্ভূত দ্বীপ বাল্ট্রায় কোনো বৃক্ষ নেই। নেই কোনো পশুপাখি। কোনো পশুপাখি এ দ্বীপে আসতে চায় না। দ্বীপের রহস্যময়তার আবিষ্কর্তা ওয়েনগার জোর করে কিছু প্রাণীকে বাল্ট্রা এবং এর পাশের দ্বীপ সান্তা ক্রুজের মধ্যবর্তী খালে ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু দেখা গেল বাল্ট্রাকে এড়িয়ে সান্তা ক্রজের ধার ঘেষে চলছে প্রাণীগুহলো। শুধু তাই নয়, উড়ন্ত পাখিগুলোও উড়তে উড়তে বাল্ট্রার কাছে এসেই ফিরে যাচ্ছে।

দেখে মনে হয়, যেন অদৃশ্য দেয়ালে ধাক্কা খাচ্ছে ওরা। বাল্ট্রা দ্বীপের এ রকম অদ্ভূত আচরনের কোনো গ্রহণযোগ্য কারণ এখনো কেউ খুঁজে বের করতে পারেনি। তবে কারো কারো মতে এখানে কোনো অস্বাভাবিক শক্তির অস্তিত্ব রয়েছে যার প্রভাবে এমন অদ্ভূত ঘটনা ঘটছে। বিজ্ঞানিরা আজো এ রহস্যের কোনো কূল – কিনারা করতে পারেননি।

Be the first to comment

Leave a Reply